২২শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

 

টাঙ্গাইলের এলেঙ্গাতে জুয়ার ব্যবসা রমরমা।। ১৪ জুয়াড়ী গ্রেফতার

আপডেট: মার্চ ১৬, ২০২৪

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

মনিরুজ্জামান মতিন,কালিহাতী(টাঙ্গাইল )     :
টাঙ্গাইলের কালিহাতীর এলেঙ্গাতে  দীর্ঘদিন  জুয়ার ব্যবসা চলে আসছে। এলেঙ্গা রিসোর্টসহ অভিজাত বাসা-বাড়িতে চড়া মূূূল্যে  ভাড়া নিয়ে  চলছে  এ অবৈধ রমরমা ব্যবসা। বিশেষ করে   এলেঙ্গা রিসোর্টে দীর্ঘদিন যাবত জুয়া চলে আসছিলো। উপজেলার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের মদদ থাাকায় কেউ   কিছু বলার সাহস পায়নি। জুয়ার ব্যবসাকে নির্বিঘ্নে চালানোর জন্য  রিসোর্টের কর্মকর্তারা উপজেলার ক্লীন ইমেজের কিছু নেতাকে কৌশলে  রিসোর্টে বসার ব্যবস্থা   করতেন। তাঁঁদেরকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার  করে  আসছিলেন রিসোর্টের কর্মকর্তারা। জুুুয়ার পাশাাপাশি দেহ ব্যবসাও চলে আসছে   এ রিসোর্টে । দেশের সব নামী-দামী সেলিব্রিটি নারী-পুরুষের অবাধ যাতায়াত এ রিসোর্টে। দেশের  ভিআইপি পতিতারা এ রিসোর্টে চড়া দামে  দেহ বিক্রি করে এখানে ।

গত ১৪ মার্চ  বৃহস্পতিবার রিসোর্টে অভিযান চালায় পুলিশ। গ্রেফতার  করে ১৪ জুুয়াড়ীকে ।  এ সময় তাদের কাছে জুয়া খেলার বিভিন্ন সরঞ্জামসহ ৩ লাখ ৩০ হাজার ৫২০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে এলেঙ্গা রিসোর্টের বিথিকা কটেজ এর দক্ষিণ পাশের কক্ষে  জুয়া খেলার সময় আসর থেকে ১৪ জন জুয়াড়িকে আটক ও জুয়া খেলার সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ।

পরদিন শুক্রবার এস আই রাজীব  বাদী হয়ে  কালিহাতী থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে আটককৃত জুয়াড়িদের টাঙ্গাইল আদালতে পাঠানো হয়।

আটককৃতরা হলো- কালিহাতীর গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের সাবেক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ(৫০), সরাতৈল গ্রামের আবুল কালামের ছেলে সাইফুল ইসলাম(৪৫), মৃত ফটিক মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম(৫০), কোরবান আলী রুবেল মিয়া(৩০), জোকারচর গ্রামের মৃত ফরমান আলীর ছেলে আসাদুজ্জামান(৪৪), মৃত নূর ইসলামের ছেলে ফজলু সরকার (৩৮), গোহালিয়াবাড়ী গ্রামের আবু সাইদের ছেলে জুলহাস মিয়া (৩৪), মজিবর রহমানের ছেলে লোকমান মিয়া(৩৮), মাছুহাটা গ্রামের মৃত জহুরুল ইসলামের ছেলে আলমগীর হোসেন (৫৭), সল্লা গ্রামের মৃত সোনা মিয়ার ছেলে মোঃ হাবিবুর রহমান(৪৭), ভুঞাপুর উপজেলা নলুয়া গ্রামের মৃত হাছেন আলীর ছেলে সুজন মিয়া(২৪), সিরাজগঞ্জের দুখিয়াবাড়ী গ্রামের ছবের আলী প্রামানিকের ছেলে আব্দুল আলীম (৩৬), হাট সারটিয়া গ্রামের মৃত আফজাল হোসেনের ছেলে মনিরুল ইসলাম (৩৮), বেলকুচি থানার মাঝাইল গ্রামের মৃত মুসা শেখের ছেলে আনোয়ার হোসেন(৩৩)।

স্থানীয়রা জানান, এলেঙ্গা রিসোর্টে দীর্ঘদিন ধরে আবাসিক রুম ব্যবসার আড়ালে যৌন ব্যবসা ও জুয়ার খেলা জমজমাট হয়ে উঠেছে।  রুম ভাড়া দিয়ে যৌন ব্যবসা ও জুয়ার আসর বসানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন অপরাধ হচ্ছে এই এলেঙ্গা রিসোর্টে।

এবিষয়ে এলেঙ্গা রিসোর্টের ব্যবস্থাপক ফখরুল আলমের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। ফখরুল আলমের ০১৭১৭২০৬৬৫৬ নম্বরের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

কালিহাতী থানার ওসি কামরুল ফারুক বলেন, উপজেলার এলেঙ্গা রিসোর্টে অভিযান চালিয়ে জুয়া খেলার সময় হাতেনাতে ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে জুয়ার ৩ লাখ ৩০ হাজার ২৭০ টাকা ও খেলার সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network