২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

 

পুরো বাজেটটাই গরিবের জন্য উপহার : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

আপডেট: জুন ৩, ২০২৩

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

 

নেক্সটনিউজ প্রতিবেদক:  প্রস্তাবিত পুরো বাজেটটাই গরিবের জন্য উপহার। এখানে জনকল্যাণের উদ্যোগ রয়েছে। এ দেশে অনেক মধ্য আয়ের মানুষ আছে। যারা আয় করেন, ট্যাক্স দেওয়ার সক্ষমতা আছে তাদের ট্যাক্স দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রস্তাবিত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের পর প্রশ্নোত্তর পর্বে মুস্তফা কামাল দাবি করেন, আমি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পরামর্শের বাজেট করিনি। তবে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ রাজস্ব আদায় বাড়াতে আমাদের বিভিন্ন রকমের শর্ত দিয়ে রেখেছে; যার ফলে ভিন্নভাবে করারোপ করা হয়েছে। এ ছাড়া দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বিষয়টি আমরা গভীরভাবে লক্ষ করছি। এতে সাধারণ মানুষের কষ্টই হচ্ছে। মূল্যস্ফীতির চাপ বেড়ে গেছে। এজন্য মূল্যস্ফীতি নিয়ে সরকারও শঙ্কিত। তবে আমাদের এ বাজেট জনকল্যাণের বাজেট। আমি কখনো ফেল করিনি, করবও না। রীতি অনুযায়ী রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে গতকাল বিকাল ৩টায় বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাব দিতে অর্থমন্ত্রীকে সহযোগিতা করেন কৃষিমন্ত্রী মো. আবদুর রাজ্জাক, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. শামসুল আলম, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার। মঞ্চে ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন, অর্থ সচিব ফাতেমা ইয়াসমিন, এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, পরিকল্পনা বিভাগের সচিব সত্যজিৎ কর্মকার, ইআরডি সচিব শরীফা খানম প্রমুখ।
প্রশ্নের জবাবে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বাজেটে যেসব কমিটমেন্ট বা অঙ্গীকার দিয়েছি সব পূরণ করেছি। দেড় দশকে আমরা ২ কোটি ৪৫ লাখ চাকরির ব্যবস্থা করেছি। ধীরে ধীরে কর্মসংস্থান বাড়ছে। কর্মসংস্থানের জন্য নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছি। মূল্যস্ফীতি এখন শুধু আমাদের এখানেই নয়; এটা এখন একটা বৈশ্বিক ব্যাপার। পৃথিবীর সব দেশেই মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। তবে আমাদের এখানে যে মূল্যস্ফীতিটা বেড়েছে সেটা মূলত আমদানিজনিত ব্যয়বৃদ্ধির কারণে। আমরা আমদানি ব্যয় নিয়ন্ত্রণ করছি। আন্তর্জাতিক বাজারে জিনিসপত্রের দাম কমতে শুরু করেছে। আমাদের এখানেও পণ্যমূল্য কমবে, তিনি আশ্বাস দেন।

প্রসঙ্গ আইএমএফ : অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা আইএমএফের পরামর্শে বাজেট করিনি। তারা অনেক শর্ত ও পরামর্শ দিয়েছে। তবে তাদের পরামর্শগুলো শুনলে আমরা সফল হব। তাদের সার্বিক পরামর্শ যা আছে, যা তারা বলে, সেখান থেকে যেটুকু গ্রহণ করা উচিত আমরা মনে করি সেটুকু গ্রহণ করব।

আইএমএফের শর্ত মেনে বাজেট হয়েছে কি না- এ প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, আমি আপনাদের নিশ্চিত করে বলতে পারি, তাদের শর্ত বা পরামর্শ মোতাবেক আমরা আমাদের বাজেট করিনি।

আগের দিন ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার আগে বক্তৃতায় আর্থিক খাতসহ বিভিন্ন ধরনের সংস্কারের ঘোষণা দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। আইএমএফ বাংলাদেশকে ৪.৭ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিতে যেসব শর্ত দিয়েছে, তার মধ্যে আছে এসব সংস্কার। অর্থমন্ত্রী বলেন, আইএমএফের যেসব পরামর্শ আছে সেটা আমরা পুরোপুরি দেখি না। তাদের সার্বিক পরামর্শ যা আছে, যা তারা বলে, সেখান থেকে যেটুকু গ্রহণ করা উচিত মনে করি, সেটুকু আমরা গ্রহণ করব। বাকিটা নিজেদের মতো করে নেব। সেখানে তাদের কোনো আপত্তি নেই। আইএমএফের সঙ্গে কাজ করাকে ভালো হিসেবেই দেখছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘কেবল আইএমএফ না, সবাই দেখে ব্যালান্স শিট ঠিক আছে কি না, রেভিনিউ অ্যাকাউন্ট ঠিক আছে কি না, ট্রায়াল ব্যালান্স ঠিক আছে কি না, আয়ব্যয়ের পার্থক্য ঠিক আছে কি না। শুধু আমাদেরটা না, সবারটাই দেখে, আর এই দেখাটা ভালো। আইএমএফের সঙ্গে যারা কাজ করে, আমি মনে করি এটা ভালো দিক এজন্য যে, তারা শুধু লোন দিয়ে সাহায্য করে না, পাশাপাশি কিছু প্রকল্পের পরামর্শ দেয়। সেগুলো কীভাবে কম সময়ে বাস্তবায়ন করা যাবে, এগুলোও তারা পরমার্শ দেয়। তাই আমি মনে করি, এসব থেকে শেখার অনেক কিছু থাকে এবং আমরা সমৃদ্ধ হই।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা এখন পৃথিবীতে সবাই সবার সঙ্গে সম্পর্কিত, একই রেখায় যুক্ত। কেউ আলাদাভাবে বসবাস করার সুযোগ নেই। আপনি আমদানি করলেও কাউকে না কাউকে লাগবে, রপ্তানি করলেও লাগবে। আর এখন ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ হচ্ছে, অন্য দেশ থেকে বলে দেওয়া হচ্ছে কোন দেশ থেকে পণ্য পাওয়া যাবে, কোথা থেকে আমরা তা পেতে পারি। আমাদের সাধ বা সাধ্য এখন এককভাবে পরিচালনা করা সম্ভব না, মাঝে মাঝে সমস্যা দেখা দিলে আমরা তা ফ্লেক্সিবলভাবে সমাধানের চেষ্টা করি।

আমি ফেল করিনি, এবারও করব না : অর্থনীতিবিদদের চোখে এবারের বাজেটের বিভিন্ন লক্ষ্য অর্জন কঠিন মনে হলেও ‘অতীতের ধারাবাহিকতায়’ সফলতা অর্জনে আশাবাদ ব্যক্ত করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরের বাজেটে আমাদের প্রজেকশন কী ছিল, আমরা কতটুকু বাস্তবায়ন করতে পেরেছি তা অ্যানেক্স (সংযুক্তি) হিসেবে দিয়েছি। আমরা ফেল করিনি। এবারও ফেল করব না, আগামীতেও আমরা ফেল করব না। এটা আমাদের দৃঢ়বিশ্বাস।

আমরা মানুষের কর্মদক্ষতা ও দায়বদ্ধতার ওপর ভর করেই লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই। সবকিছুর মূলে হচ্ছে এ দেশের মানুষ, জনগোষ্ঠী। তাদের কর্মদক্ষতা, দেশের প্রতি তাদের মায়ামমতা, মানুষের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতা। এটা অসাধারণ এক উদাহরণ। সেজন্য আমার বিশ্বাস, আমাদের পরাজয় নেই। আমরা বিজয়ী হবই হব। রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের এক প্রশ্নে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার যখন প্রথম দায়িত্ব গ্রহণ করে তখন এনবিআর রাজস্ব ছিল ৫৯ হাজার কোটি টাকা। এখন সেটা ২ লাখ ৯৫ হাজার কোটি টাকায় উত্তীর্ণ হয়েছে। যদি ৫৯ হাজার কোটি টাকা থেকে এখন ৩ লাখ কোটি টাকাতে যায়, যেটুকু বাড়তি বলছেন, এটা আমরা অর্জন করতে পারব। আমাদের প্রজেকশন যেগুলো আছে, আমরা ফুলফিল করতে পারব।

একজনও কালো টাকা সাদা করেননি : অর্থমন্ত্রী বলেন, সুযোগ দেওয়া সত্ত্বেও গত এক বছরে একজনও কালো টাকা সাদা করেননি। আমি গত বছরের বাজেট বক্তৃতায় বলেছিলাম, কেউ যদি অপ্রত্যাশিত টাকা দেশে নিয়ে আসে, তাহলে সেই টাকার কোনো কর দিতে হবে না। গত বাজেটে এ সুযোগটি দেওয়ার পরও এখন পর্যন্ত কোনো অপ্রত্যাশিত টাকা বাংলাদেশে আসেনি। তাই এবারের বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রাখা হয়নি। আমরা মনে করছি আমাদের বাজারে কোনো কালো টাকা নেই।

মূল্যস্ফীতি নিয়ে সরকারও শঙ্কিত : অর্থমন্ত্রী বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ে সরকারও শঙ্কিত। সারা বিশ্বই এখন মূল্যস্ফীতিতে আছে। আমরা খাবার তো বন্ধ করতে পারব না। মানুষকে খাবার না দিয়ে রাখা যাবে না। আমরা একটা ফ্লেক্সিবল ওয়েতে এগোচ্ছি। যেসব কারণে এটি হয়, তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি। প্রয়োজন অনুযায়ী আমরা ছাড় দিচ্ছি। এজন্য আমরা সামাজিক নিরাপত্তার মাধ্যমে প্রচুর খাদ্য সরবরাহ করছি। পাশাপাশি যেসব পণ্য নিত্যপ্রয়োজনীয়, সেখানে নিজেরা নিয়ন্ত্রণ করে সরকারকে সাহায্য করছি। এভাবে আমরা মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি। যখন আমরা ক্ষমতায় আসি, তখন মূল্যস্ফীতি ছিল ১২ শতাংশ। পরের ১০ বছরে তা ৬ শতাংশে নেমে আসে। সারা বিশ্বে মূল্যস্ফীতি অনেক বেড়েছে। এখন খুব খারাপ সময়। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আমরা ভালো আছি।

টিআইএন থাকলে রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক এবং রিটার্ন দিলেই ন্যূনতম ২ হাজার টাকা কর দেওয়া বাধ্যতামূলক প্রসঙ্গে এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেছেন, আমি অনুরোধ করব দেখে নিন কাদের টিআইএন আছে। টিআইএন বাধ্যতামূলক আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের জন্য, গাড়িসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে। গরিব মানুষের জন্য তো টিআইএন বাধ্যতামূলক নয়। তাদের ২ হাজার টাকা সরকারের কোষাগারে দিয়ে উন্নয়নে শামিল হওয়া গর্বের ব্যাপার।

প্রসঙ্গ বিদ্যুৎ-জ্বালানি ও দুর্নীতি : অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ-জ্বালানির দুরবস্থা ও দুর্নীতির প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন বেড়েছে। জ্বালানি-বিদ্যুৎ মর্যাদার জায়গায় এসেছে। আমরা ভালো ভালো শিল্পকারখানা গড়ে তুলছি। জ্বালানি-বিদ্যুৎ ঠিকমতোই সরবরাহ করা হচ্ছে। কভিডের পর বিশ্ব সংকটে পড়ে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানিসহ সব জিনিসের দাম বৃদ্ধি পায়। জ্বালানির উপকরণ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হয়। দেশের অর্থনীতি বিবেচনা করে অনেক বেশি ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। ইউরোপে মূল্যস্ফীতি বেশি। এশিয়ায়ও প্রভাব পড়েছে। সরকার কৌশলী ভূমিকায় থেকে কাজ করছে। জ্বালানি-বিদ্যুৎ ঠিকমতো সরবরাহ করা হচ্ছে। জিডিপির গ্রোথও ভালো। আইএমএফের মূল্যায়ন প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, আইএমএফের কাছে ঋণ চাইলে তারা ম্যাক্স ম্যানেজমেন্ট ইভ্যালুয়েশন করে। বাংলাদেশের আর্থিক ব্যবস্থা ভালোভাবে চলছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি ভালো অবস্থায় আছে, আইএমএফ এটা বলেছে। দেশের অর্থনীতি ভালো, খাদ্য ঘাটতিও নেই। ১৪ বছরে দেশে খাদ্য ঘাটতি দেখা যায়নি। আমাদের আর্থিক ব্যবস্থা ভালো, আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।

প্রসঙ্গ ভালো থাকা : পণ্যের দাম বাড়লেও অন্যদের তুলনায় বাংলাদেশের অবস্থা ভালো, দাবি করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেন, সারা পৃথিবীর দিকে তাকালে দেখবেন আমরা কোন অবস্থায় আছি। নিম্ন আয়ের মানুষের কিছু কষ্ট হচ্ছে, এটা অর্থমন্ত্রীও বলেছেন। আমরা কিন্তু এটি মাথায় রেখে ১ কোটি পরিবারকে সাশ্রয়ী মূল্যে ডাল-চিনি দিয়েছি। পিঁয়াজের দাম যখন বেড়েছে আমরা কম দামে পিঁয়াজ বিক্রি করেছি। আমরা আশা করছি সামনে আরও ভালো কিছু হবে। তবে অন্যদের তুলনায় আমরা ভালো আছি। বাজারে মধ্যস্বত্বভোগীরা সুযোগ নিয়ে সমস্যা তৈরি করে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা যেসব পণ্য ইমপোর্ট করি তার দাম যদি বাড়ে বাজারেও এর প্রভাব পড়ে। কোথাও কোথাও সমস্যা আছে। মধ্যস্বত্বভোগীরা সুযোগ নিয়ে সমস্যা তৈরি করে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জন্য ৭ লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করা হয়েছে।

শব্দযন্ত্র বিভ্রাটে বিশৃঙ্খলা : যান্ত্রিক ত্রুটি ও শব্দবিভ্রাটের কারণে সংবাদ সম্মেলন শুরুর আধঘণ্টা পর তা ১০-১২ মিনিট বন্ধ রাখতে হয়। সংবাদ সম্মেলন শব্দযন্ত্রের জটিলতায় বিঘ্নিত হয় বারবার। সাংবাদিকদের কাছ থেকে প্রশ্ন নেওয়ার সময় কয়েকটি প্রশ্ন ভালোমতো শুনতে পাচ্ছিলেন না অর্থমন্ত্রী। তিনি প্রশ্নের যে জবাব দিচ্ছিলেন অনেক সময় সাংবাদিকরাও তা ভালোমতো শুনতে পাচ্ছিলেন না। প্রায় ৩০ মিনিট এভাবেই সংবাদ সম্মেলন চলে। এ সময় পুরো হলরুমে হইচই শুরু পড়ে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে সাংবাদিকদের আসন থেকে উঠে সামনে দাঁড়িয়ে মাইক ছাড়াই প্রশ্ন করার আহ্বান জানান অর্থমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রীর বাঁ পাশে বসা স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, আমার মনে হয় সিস্টেমের মধ্যে ত্রুটি আছে। এরপর অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাই সাউন্ড সিস্টেম ঠিক করতে তোড়জোর শুরু করেন। কিন্তু এতেও সমাধান না হলে মিলনায়তনে কিছুটা হট্টগোল হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেনকে পরিস্থিতি সামলানোর চেষ্টা করতে দেখা যায়। হ্যান্ডমাইক চাইলেও সঙ্গে সঙ্গে তাও দিতে পারেননি আয়োজকরা। বিকাল ৪টার কিছুটা আগে পুনরায় সংবাদ সম্মেলন শুরু হলেও সাউন্ড সিস্টেম নিয়ে অস্বস্তি শেষ পর্যন্তই ছিল।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network