৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

 

পরীমনির মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে টাঙ্গাইলের বাসাইলে মানব বন্ধন

আপডেট: জুন ২৬, ২০২১

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নেক্সটনিউজ প্রতিবেদক,টাঙ্গাইল : আলোচিত নায়িকা পরীমনির দায়ের করা মামলাটি অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন টাঙ্গাইলের বাসাইলবাসী। সাথে সাথে বাসাইলের কৃতি সন্তান তুহিন সিদ্দিকী অমির মুক্তি দাবী করেছেন তারা। টাঙ্গাইল জেলার বাসাইল উপজেলায় ২৬ জুুন  শনিবার মানববন্ধনে তারা এ দাবী জানান। মানববন্ধনে তারা বৃহত্তর আন্দোলনেরও হুমকী দেন। মানব বন্ধনে প্রায় সহস্রাধিক লোক অংশ নেন।

চিত্রনায়িকা পরীমনির দায়ের করা মামলাটি প্রত্যাহার এবং মামলার আসামি তুহিন সিদ্দিকী অমির মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে। শনিবার বেলা ১১টায় টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় এই কর্মসূচি পালিত হয়।

অমির নিজ গ্রাম বাসাইল উপজেলার গুল্লাহ এলাকায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে মানববন্ধন হয়। কর্মসূচি চলাকালে বাসাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম, হাবলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম, স্থানীয় ইউপি সদস্য আকবর আলী, এলাকাবাসীর মধ্যে হায়েত আলী, হাজেরা বেগম প্রমুখ বক্তব্য দেন। মানববন্ধনে বিভিন্ন এলাকার সহস্রাধিক নারী-পুরুষ অংশ নেন।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, পরীমনির মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া অমির বাবা তোফাজ্জল হোসেন তোফা বাসাইল উপজেলার গুল্লাহ গ্রামের বাসিন্দা। জনশক্তি রপ্তানি ও হুন্ডির ব্যবসা করে তিনি অনেক অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন। স্থানীয় রাজনীতিকসহ বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অনুদান দিয়ে থাকেন তোফাজ্জল। এ কারণে তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়ে এই মানববন্ধন কর্মসূচিতে বহু মানুষ অংশ নেন।
এ প্রসঙ্গে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম বলেন, অমি এবং তাঁর বাবা ভালো মানুষ। অমির বাবা এ অঞ্চলের অনেককে বিদেশে পাঠিয়েছেন। তাঁর কারণে এ অঞ্চলের গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙা হয়েছে। তাই তাঁরা মানববন্ধনে অংশ নিয়েছেন। করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে তাঁরা রাতদিন কাজ করছেন। বাসাইলে সংক্রমের হার অনেক কম।
৯ জুন মধ্যরাতে সাভারে অবস্থিত ঢাকা বোট ক্লাবে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা করা হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় তিনি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ, অমিসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে সাভার থানায় মামলা করেন। পরে ঢাকার উত্তরা থেকে নাসির, অমিসহ পাঁচজনকে আটক করা হয়। এরপর তাঁদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়। বর্তমানে অমিসহ গ্রেপ্তার হওয়া সবাই কারাগারে আছেন।
মানববন্ধন চলাকালে বক্তারা পরীমনি সম্পর্কে বিষোদ্‌গার করেন। তাঁরা অমির মুক্তি দাবি করে বলেন, অমির বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করা না হলে পরবর্তী সময়ে আরও কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দেওয়া হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network