১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

 

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে কালবৈশাখী ও শিলাবৃষ্টির তান্ডব: ৪৫০একর জমির ফসল বিনষ্ট

আপডেট: এপ্রিল ২২, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
নেক্সটনিউজ প্রতিবেদক, কালিহাতী (টাঙ্গাইল) : টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে কালবৈশাখী ও শিলাবৃষ্টির তান্ডবে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। এতে প্রায় ৪০জন মানুষ আহত হয়েছে এবং ৪৫০ একর জমির ধান বিনষ্ট হয়েছে। বৈদ্যুতিক খুঁটিসহ ঘরবাড়ি ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। ঝড় ও শিলাবৃষ্টির স্থায়িত্বকাল ছিলো ৫ থেকে ১০ মিনিট। ২২ এপ্রিল বিকেলে সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার ঘরিয়া গ্রামে হালকা ঝড় ও ব্যাপক শিলাবৃষ্টি হানা দেয়।প্রায় ৫ মিনিটে শিলাবৃষ্টিতে ঐ গ্রামের দুই মৌজার প্রায় ৪৫০ একর জমির ধান মাটিতে ফেলে দিয়ে বিনষ্ট করে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মনসুরুল হক চাঁন মিয়া নেক্সটনিউজকে জানান, আমাদের ঘরিয়া গ্রামের দুই মৌজার ১২ টি ইঞ্জিনচালিত মেশিনের অধীনে ৮০ খাদা (৪২৫একর) জমির ধান পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে করে আমার এই দুই মৌজায় প্রায় চার হাজার মন ধানের ক্ষতি হয়েছে। ঐ গ্রামে ঘরবাড়ি ও গাছপালারও ক্ষতি হয়েছে।
ঘরিয়া গ্রামে হানা দেয়ার পর ঝড়টি পার্শ্ববর্তী ইছাপুর গ্রামে হানা দেয় আনুমানিক বিকেল ৪ ঘটিকার দিকে। উপজেলার ইছাপুর গ্রামে বুধবার বিকেল ৪ টার দিকে ৩ মিনিট স্থায়ী ঝড়ে বাড়ি-ঘর ছাড়াও প্রায় ১৫টি বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায়। এসময় গাছপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। ঝড়ের সময় ঘরে অবস্থানরত ১০-১২ জন আহত হন। ঝরের পূর্বে শিলাবৃষ্টির কারণে পাকা ও অর্ধপাকা ধান আঁছড়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এতে প্রায় শতাধিক বিঘা জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে।
ইছাপুরের উত্তরপাড়া থেকে শুরু করে প্রায় দেড় কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকাজুড়ে এ ঝড়ের প্রভাবে বাড়ি-ঘর ও দোকানপাট বিধ্বস্ত হয়ে যায়। গাছপালা ও বৈদ্যুতিক খুঁটি ভেঙ্গে পড়ায় এলেঙ্গা-ময়মনসিংহ সড়কের ইছাপুর এলাকায় রাস্তা সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় রাস্তায় ভেঙ্গে পড়া খুঁটি ও তার সরিয়ে ফেললে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। প্রাথমিকভাবে ঝড়ের ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি।
এবিষয়ে কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম আরা নিপা বলেন, হঠাৎ ঝড়ে বেশকিছু বাড়িঘর, দোকানপাট ও ফসলী জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার তাৎক্ষণিক খবর পাওয়া গেছে। আমরা ঘটনাস্থল সরেজমিন পরিদর্শন করে ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন এবং দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার বিষয়টি স্থানীয়রা স্থানীয় এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী ও কালিহাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান আল মামুনকে জানিয়েছেন। থানা পুলিশ উদ্ধারকাজ পরিচালনা করেছে। ওসি হাসান আল মামুন জানিয়েছেন, শোনা মাত্র ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি।পুলিশ উদ্ধার কাজ করেছে।
 কালিহাতী উপজেলা কৃষি কমকর্তা মো: সাজ্জাদ হোসেন তালুকদার বলেন, ঝড় ও শিলাবৃষ্টির কারণে ইছাপুর, নারান্দিয়া, নরদহি, সল্লা ও দূর্গাপুর এলাকায় ব্রী ধান ২৮ ও ব্রী ধান ৮৬ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্রাথমিকভাবে আমরা ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করতে পারিনি। আগামীকাল (২৩ এপ্রিল) সরেজমিনে পরিদর্শন করে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা হবে।
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network